Breaking News

হবিগঞ্জ-শায়েস্তাগঞ্জ সড়কের সিএনজি ও মোটর সাইকেলের সংঘর্ষ ॥ আহত ৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ-শায়েস্তাগঞ্জ সড়কের ৩নং পুল এলাকায় সিএনজি অটোরিক্সা ও মোটর সাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ৫ জন আহত হয়েছে। গতকাল রবিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। জানা যায়, হবিগঞ্জগামী একটি সিএনজি ওই স্থানে পৌছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি মোটর সাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে বহুলা গ্রামের পুলিশের কথিত সোর্স কামাল খানঁ (৩০) ও সিএনজি চালক আক্কাস আলী (৩২) আহত হয়। তাদেরকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া [more]

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে হবিগঞ্জে ২০ দলীয় জোটের গণমিছিল

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে দেশব্যাপী গণমিছিলের অংশ হিসেবে হবিগঞ্জে গণমিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে জেলা বিএনপি। গতকাল রোববার বিকালে পৌরসভা মাঠ থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে বেবী স্ট্যান্ড মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। এ সময় পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এডভোকেট খালিকুজ্জামান চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ মিজানুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন- জেলা জামায়াতের নায়েবে আমীর মাওলানা আব্দুর রহমান, জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট হাজী নুরুল ইসলাম, জেলা জামায়াতের সেক্রেটারী মাওলানা মোশাহিদ আলী, জেলা খেলাফত মজলিসের সেক্রেটারী প্রভাষক আব্দুল করিম, জেলা শ্রমিকদলের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এস এম বজলুর রহমান, জেলা যুবদলের সভাপতি আজিজুর রহমান কাজল, জেলা কৃষকদলের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান আওয়াল, বিএনপি নেতা এডভোকেট এস এম আলী আজগর, এস এম আওয়াল, এডভোকেট আফজাল হোসেন, মোঃ আজম উদ্দিন, মোঃ দেলোয়ার হোসেন দিলু, মখলিছুর রহমান, গিরেন্ড চন্দ্র রায়, জেলা মহিলাদলের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট ফাতেমা ইয়াসমিন, সাংগঠনিক সম্পাদক কাউন্সিলর লাভলী সুলতানা, জামায়াত নেতা কাজী মহসিন আহমেদ, জমিলুন্নবী ফয়সল, প্রভাষক নজরুল ইসলাম, জাপা নেতা তোরাব আলী, মোস্তফা জামাল, মুহিব আল হাসান, মশিউর রহমান কামাল, আবু ছালেক, কাউন্সিলর আব্দুল আউয়াল মজনু, সালা উদ্দিন টিটু, কুতুব উদ্দিন শামীম, জেলা ছাত্র শিবিরি নেতা আতিকুল ইসলাম সোহাগ, মাহমুদুল হাসান কিবরিয়া, অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী, সাইদুর রহমান কুটি, রতন আনসারী, সোহেল এ চৌধুরী, নুরুল হক লিটন, এডভোকেট আব্দুল কাদির, আনোয়ারুল ইসলাম, আজিজুর রহমান, ফারুক আহমেদ, হারিছ চৌধুরী, আব্দুল আহাদ আনসারী, এডভোকেট গুলজার খান, হারুনুর রশিদ, শেখ মখলিছ, মুসা আহমেদ দিপু, আব্দুল্লাহিল কাফি, অর্জিত দাস, বিকাশ দাস, মিজানুর রহমান সুমন, মতিউর রহমান, এনামুল হক চৌধুরী, তারেক আহমেদ তাহির, শারফিন চৌধুরী রিয়াজ, আলপনা চৌধুরী মাসুদ, শাহ জাহাঙ্গীর আলম সুমন, সাইফল ইসলাম রাজ, রাসেল মোল্লাহ, জুম্মন মেম্বার, আব্দুল কাইয়ুম, শাহজাহান মিয়া, আরজত আলী, খালেক দেওয়ান, সাইফুর রহমান রিপন, আব্দুস সাত্তার রনি, মোঃ আল আমিন, মিজানুর রহমান সোহেল, ইকবাল আহমেদ, সুফল আহমেদ, আবিদুর রহমান বুলবুল, মোঃ হারিছ, শেখ রহমত আলী, জালাল আহমেদ [more]

হবিগঞ্জে পাহাড়িকা ট্রেনে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপের ঘটনায় ৬ জনকে আটক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জে পাহাড়িকা ট্রেনে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে শিবির নেতাসহ ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ ও বিজিবি। শনিবার রাত থেকে গতকাল রোববার সকাল পর্যন্ত বিজিবি, জিআরপি পুলিশ এবং মাধবপুর, চুনারুঘাট ও শায়েস্তাগঞ্জ থানা পুলিশ জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে। আটকরা হলেন চুনারুঘাট উপজেলা ছাত্রশিবিরের সাবেক বায়তুল মাল সম্পাদক আমির হোসেন নোমান, শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার পশ্চিম লেঞ্জাপাড়া গ্রামের সুজন মিয়া, উচাইল গ্রামের হেলাল মিয়া, মাধবপুর উপজেলার ছাতিয়াইন গ্রামের সাহাব উদ্দিন ও আব্দুস সোবহান এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার সাতবর্গ গ্রামের সজল রায়। শায়েস্তাগঞ্জ থানার ওসি ইয়াছিনুল হক জানান, আটককৃতদের শ্রীমঙ্গল জিআরপি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এদিকে দগ্ধ হয়েছেন মা-মেয়েসহ ৩ যাত্রীকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। গত শনিবার রাতে শাহজিবাজারের রাধাপুর এলাকায় চট্টগ্রাম থেকে সিলেটগামী পাহাড়িকা ট্রেনে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ও আহত সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার সন্ধ্যারাতে পাহাড়িকা ট্রেনটি রাধাপুর এলাকায় পৌঁছলে চলন্ত গাড়িতে কে বা কারা পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে। এতে ট্রেনযাত্রী সদর উপজেলার পইল গ্রামের কেছলি মিয়ার স্ত্রী মায়া খাতুন, তার মেয়ে আমিনা খাতুন এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগরের হরষপুর গ্রামের মোহন রুদ্র পালের ছেলে মাধব রুদ্র পাল দগ্ধ হন। এ সময় ট্রেনে অন্যান্য যাত্রীরা আতংকে ছোটাছুটি করলে আরো কয়েকজন আহত হন। ট্রেনটি শায়েস্তাগঞ্জ জংশনে পৌঁছলে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় শায়েস্তাগঞ্জ থানার এসআই মোবারক হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। দগ্ধদের হাসপাতালে নিয়ে আসার পর এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। জরুরী বিভাগে তাদের আর্তচিৎকারে হাসপাতালের বাতাস ভারি হয়ে উঠে। সদর হাসপাতালে বার্ণ ইউনিট না থাকায় তাদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রাত ১২টার দিকে সিলেট পাঠানো হয়। পাহাড়িকা ট্রেনে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা হুমায়ূন আহমেদ বলেন, দুর্বৃত্তরা পরপর তিনটি অগ্নিবোমা ছুড়ে মারে। তিনি জানান, ট্রেনের পাওয়ার কারে পেট্রোল বোমা প্রবেশ করলে পুরো ট্রেনের ব্যাপক ক্ষতি হতো। যাত্রীদেরও প্রাণহানির আশঙ্কা ছিল। ট্রেনের গতি বেশি থাকায় তেমন কোনো সমস্যা [more]

মাধবপুরে পেট্রোল দিয়ে জাতীয় পার্টির সেক্রেটারীর বাড়ি পুড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা

রাজীব দেব রায় রাজু, মাধবপুর থেকে ॥ মাধবপুর উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারন সম্পাদক আক্তার হোসেন মনিরের বাড়ি আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছে দূর্বত্তরা। গতকাল রোববার ভোর রাতে উপজেলার বড়–রা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ওইদিন সকালে বাড়ির পুকুর পাড় থেকে পেট্রোল ভর্তি কয়েকটি বোতল উদ্ধার করেছে। এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা যায়, গতকাল ভোর রাতে একদল দূর্বত্ত উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারন সম্পাদক আক্তার হোসেন মনিরের বাড়িতে গিয়ে তার বসত ঘরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় পাশের বাড়িতে একটি অনুষ্টানে থাকা লোকজন দেখতে পেয়ে দূর্বত্তদের ধাওয়া দিলে দূর্বত্তরা দ্রুত একটি প্রাইভেটকার দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। খবর পেয়ে কাশিমনগর ফাঁড়ির ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিত্যাক্ত অবস্থায় কোমল পানির বোতলে ভরা পেট্রোল জাতীয় দাহ পদার্থ উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে জাতায় পার্টির সাধারন সম্পাদক আক্তার হোসেন মনির জানান, মুক্তা নামের এক মেয়ের বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনায় মুক্তার প্রাক্তন স্বামি সহ কয়েকজন মিলে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ব্যাপারে মাধবপুর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) কেএম আজমিরুজ্জামানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া [more]

২০ দলীয় জোটের নৈরাজ্য ও নাশকতার শেষ কোথায়Ñ জেলা প্রশাসক

সাঈদ আহমদ, বাহুবল ॥ হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক জয়নাল আবেদীন বলেছেন- ২০ দলীয় বিরোধী জোট সারাদেশে যেভাবে নৈরাজ্য ও নাশকতা করছে তার শেষ কোথায়? তাদের ধ্বংসাত্মক কর্মসূচীর কারণে মানুষের জীবন বিপন্ন হচ্ছে। দেশের ভবিষ্যত শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে পারছে না। ফলে তাদের জীবনের মূল্যবান সময় নষ্ট হচ্ছে। বিএনপি জামাত জোট যাদেরকে পুড়িয়ে মারছে, দেশে তাদেরই কোন মা, বাবা, ভাই বোন হতে পারে, তাদেরকে প্রতিরোধ করতে হবে। তিনি গতকাল রবিবার সন্ধায় বাহুবল উপজেলার পুটিজুরী বাজারে স্থানীয় প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠিত আইন শৃংখলা বিশেষ সভায় প্রধান অথিতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। সভায় বিশেষ অথিতির বক্তব্যে পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র বলেন- জ্বালাও পোড়াও মানুষ হত্যা গণতন্ত্রের বৈশিষ্ট্য নয়। ২০ দলীয় জোটের ধ্বংসাত্মক কর্মসূচীর ভেতরে যেহেতু এসব ঘটনা ঘটছে এর দায় তারা এড়াতে পারবে না। তিনি সভায় নাশকতাকারীদের হাতে নাতে ধরে আইন শৃংখলা বাহিনীকে সহায়তা করলে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেন। পুলিশ সুপার বলেন- ৯০ সালে আমি ছাত্র ছিলাম। আমি এরশাদ বিরোধী আন্দোলন করেছি। কোন নাশকতা করিনি। তখনকার সময়েও পুলিশ টিয়ার গ্যাস, টিয়ারসেল মেরেছে। কিন্তু আমরা তখন নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের বিশ্বাসী ছিলাম। তিনি বলেন- গত ২৫ ফেব্র“য়ারি হামিদের বাড়িঘর, গাড়ি ভাংচুর ও বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে জনতা মারপিট করতে পারেন না। আইন নিজের হাতে তুলে নেয়াও বেআইনী। তাকে আইনের হাতে সোপর্দ করা উচিত ছিল। পুটিজজুরী ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্বে ও পংকজ কান্তি গোপ টিটুর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাই, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নাজমূল হক, সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির চৌধুরী, চেয়ারম্যান আব্দুর রেজ্জাক, আ’লীগ নেতা শামছুদ্দিন তারা মিয়া, শাহ আব্দুল আহাদ, জাপা নেতা এমএ জব্বার [more]

চুনারুঘাটে আড়াই লাখ টাকার মূল্যের ৯৬ বোতল ভারতীয় মাদক দ্রব্য উদ্ধার

চুনারুঘাট প্রতিনিধি ॥ চুনারুঘাট উপজেলা আহাম্মাবাদ ইউনিয়নের বনগাঁও গ্রাম থেকে ভারতীয় নিষিদ্ধ ৯৬ বোতল মাদক দ্রব্য উদ্ধার করেছে চুনারুঘাট থানা পুলিশ। গতকাল শনিবার বিকাল ৫টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চুানরুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অমূল্য কুমার চৌধুরী ও এসআই হরিদাস সরকার অভিযান চালিয়ে এই মাদক দ্রব্য উদ্ধার করেন। পুলিশ সূত্রে জানাযায়, বনগাঁও গ্রামের আনসার কমান্ডার হাসান আলীর বসত ঘর থেকে ৩১ বোতল রয়েল স্টেজ, ১৬ বোতল হুইসকি, ১৫ বোতল অফিসার চয়েস ও ৩৪ ফেন্সিডিল উদ্ধার করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। উদ্ধারকৃত মাদক দ্রব্যের বর্তমান বাজার মূল্য আড়াই লক্ষাধিক টাকা হবে বলে পুলিশ জানায়। এ ব্যাপারে চুনারুঘাট থানায় মামলা হয়েছে। উল্লেখ্য, হরতাল-অবরোধকে কাজে লাগিয়ে ইদানিং মাদক ব্যবসায়ীরা সক্রীয় হয়ে উঠেছে। চুনারুঘাট সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় মাদক ব্যবসায়ীরা ভারত থেকে চোরাই পথে মাদকদ্রব্য এনে মজুত করে রাখে। পরে তারা সময় সুযোগ করে বিভিন্ন স্থানে পাচার করে। [more]