মহাদশমী উপলক্ষে সনাতন ধর্মালম্বীদের নিয়ে জেলা প্রশাসকের মধ্যাহ্নভোজ ও আলোচনা সভা

0
0

বাঙালি সংস্কৃতিতে উৎসব আয়োজনের কোনো কমতি নেই। সব উৎসবই ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব বাঙালির জন্য। হৃদয়ে অসাম্প্রদায়িত চেতনা লালন করে বাঙালি প্রতিটি ধর্মীয় উৎসবকে যেন মনে প্রাণে ধারণ করে আসছে যুগ যুগ ধরে। শারদীয় দূর্গোৎসবকে এক মধুর লগ্নে আবির্ভূত করে সাজিয়ে রাখলেন হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবির মুরাদ। তিনি এই প্রথম দূর্গাপূজা উপলক্ষে এক ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ গ্রহণ করে হবিগঞ্জের ধর্মীয় ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছেন। গতকাল বুধবার মহাদশমী উপলক্ষে সনাতনধর্মালম্বীদের নিয়ে তিনি মধ্যাহ্নভোজ ও আলোচনা সভার আয়োজন করেন।

জেলা সার্কিট হাউজে অনুষ্ঠিত এ মধ্যাহ্নভোজে প্রায় তিন শতাধিক মানুষ অংশগ্রহণ করেন। জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবির মুরাদের এই উদ্যোগের প্রশংসা করেন হিন্দু ধর্মালম্বীরা। সেই সাথে এই উদ্যোগ বাঙালীর হৃদয়ে অসম্প্রদায়িক চেতনাকে আরও সুদৃঢ় করবে বলে মনে করেন। আয়োজিত মধ্যাহ্নভোজে পরিবেশন করা হয় বাংলার ঐতিহ্যবাহি ও সবধরণের সনাতন ধর্মালম্বীদের খাবার। সেখানে আমিষ জাতীয় কোন খাবার ছিল না। পরিবেশন করা হয় ভোজনরসিক বাঙালীর বাহারি ধরণের নিরামিষ জাতীয় খাবারের সাথে মিষ্টি পায়েস।

আলোচনা সভা ও মধ্যাহ্নভোজে অংশগ্রহণ করেন, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট মাহবুব আলী, হবিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এডভোকেট আবু জাহির, হবিগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য শাহ্ নওয়াজ গাজী মিলাদ, সাবেক সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, এডভোকেট অহীন্দ্র দত্ত চৌধুরী, পূণ্যব্রত চৌধুরী বিভু, এডভোকেট নলিনী কান্ত নীরু, এডভোকেট স্বরাজ বিশ্বাস, শংখ শুভ্র রায়, অনুপ কুমার দেব মনা ও সাংবাদিক-ব্যাসায়ীসহ সুশীল সমাজের লোকজন।