শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১
31 C
Habiganj

লাখাইর মোড়াকরি-কৃষ্ণপুর সড়কের আংশিক নদীগর্ভে বিলীন, রক্ষায় নেই কোন উদ্যোগ

লাখাই উপজেলার মোড়াকরি বাজার হইতে সন্তোষপুর ভায়া কৃষ্ণপুর সড়কের বড়পুটিয়া ব্রীজের পূর্বপাশের বিস্তীর্ণ অংশ সড়কের পাশ দিয়ে বয়ে চলা বলভদ্র নদের ভাঙ্গনের কবলে পড়ে বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

বলভদ্র নদের এ অংশে ভাঙ্গন প্রকট আকার ধারন করায় সড়কের এই অংশটি দিন দিন নদীগর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, বিগত দেড় দুবছরে সড়কটি প্রায় ১০০-১৫০ ফুট পূর্বের অবস্থান থেকে সরে এসেছে। নদী ভাঙ্গনের ফলে বর্তমানে এ সড়কে যানচলচল ও জনচলাচলে দুর্ভোগ চরমে।

এদিকে এ সড়কে চলাচল নির্বিঘ্ন করার লক্ষে বড়পুটিয়া খালের উপর ব্রীজ নির্মিত হলেও ব্রীজের এক পার্শ্বের সড়ক ক্রমাগতভাবে সড়ে যতে থাকায় ব্রীজটি রয়েছে ঝুঁকিতে। সড়কের ভাঙ্গন ঠেকাতে না পারলে হয়তো ব্রীজটিই বিলীন হয়ে যেতে পারে।

স্থানীয় বাসিন্দা মোড়াকরি গ্রামের কাউছার মিয়া, কৃষ্ণপুর গ্রামের লিটন দাস, হরিপদ সরকার সহ এলাকার লোকজনের সাথে আলাপকালে জানান, এ সড়কের প্রভুত উন্নয়নমূলক কাজ এবং ব্রীজ নির্মিত হওয়ায় চলাচলের পথ সুগম হয়েছে।

“তবে দীর্ঘদিন যাবৎ সড়কের বড়পুটিয়া ও ছোট পুটিয়া খালের মধ্যবর্তী অংশে নদীভাঙ্গন অব্যাহত থাকায় আমাদের ভোগান্তি চরমে।”

“বিগত কয়েক বছরে সড়কটি প্রায় ২০০-৩০০ মিটার সরে এসেছে। এ অবস্থায় নদী ভাঙ্গনের কবল থেকে রক্ষায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনের জোর দাবী জানাচ্ছি।”

“আমরা মনে করি, নদীর এ অংশে যে বাঁক নিয়েছে তা যদি ব্রীজের বরাবর সোজা করে খনন করা যেত তবে ভাঙ্গন রোধ করা সহজ হতো।”

সড়কের এ অংশটি সরেজমিন পরিদর্শনে ও স্থানীয়দের সাথে আলাপকালে জানা যায়, ঐ স্থানে নদীটি পূর্বে অনেক দক্ষিণে ছিল। নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে নদীটি বর্তমানে প্রায় ৩০০-৪০০ ফুুট উত্তরে চলে আসায় বড় একটি বাঁকের সৃষ্টি হয়েছে।

এতে ভাঙ্গন প্রবনতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। আর এতে লক্ষ লক্ষ টাকায় নির্মিত ব্রীজটিও আজ হুমকীতে পড়েছে। বছরের পর বছর ভাঙ্গন চলতে থাকায় একদিকে ফসলী জমি নদী গর্ভে বিলীন হচ্ছে অন্যদিকে নদীর অপর তীরে চর জাঁকছে।

এ বিষয়ে লাখাই উপজেলা এল.জি.ই.ডি প্রকৌশলী শাহ আলম জানান, নদী ভাঙ্গনে গত দুই বছরে সড়কটি অনেক সরে এসেছে। ভাঙ্গনরোধে ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী।

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ড হবিগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী শাহ নেওয়াজ জানান, আমরা নদীর তীরবর্তী রাস্তা, ব্রীজের ক্ষেত্রে শুধু পরামর্শ দিয়ে থাকি। নির্মাণ করে এল.জি.ই.ডি। আর নদী ভাঙ্গনের বিষয়ে অবগত নই। জানালে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

প্রিয় পাঠক

আপনার আশেপাশের যে কোন সমস্যার কথা আমাদেরকে লিখে পাঠান। এলাকার সম্ভাবনার কথা, মাদক, দুর্নীতি, অনিয়ম আর সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্যসহ পাঠিয়ে দিন আমাদের ই-মেইলে। ই-মেইলঃ habiganjnews24@hotmail.com

95,640FansLike
1,432FollowersFollow
2,458FollowersFollow
2,145SubscribersSubscribe