লাখাইয়ে ডাকাতি করে পালানোর সময় অস্ত্রশস্ত্রসহ গ্রেফতার ৫

0
1

অস্ত্রশস্ত্রসহ ৫ ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে তাদের গ্রেফতার করা হয়। তাদের নিকট থেকে ডাকাতির মালামাল ও ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত অস্ত্রসহ সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যায় আটক ডাকাতরা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে   স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে- লাখাই উপজেলার স্বজন গ্রামের জাহের মিয়ার পুত্র ফরহাদ মিয়া (২০), একই গ্রামের নুরু মিয়ার পুত্র মামুন মিয়া (২২) ও আমির আলীর পুত্র মফিজুল ইসলাম (২০), সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক থানার সিনসাপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের পুত্র কবির মিয়া (৩১), শায়েস্তাগঞ্জ থানার মৃত মোহর আলীর পুত্র সৈয়দ আলী (৪২)। এ সময় তাদের নিকট থেকে ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত দেশীয় অস্ত্র ও বিভিন্ন সরঞ্জামসহ লুন্ঠিত মালামলাল উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা গতকাল রাতে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, লাখাই উপজেলার মুড়াকরি ইউনিয়নের ফুলবাড়িয়া গ্রামের মিলন মিয়ার বাড়িতে ডাকাতি সংঘটিত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যার নির্দেশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে লাখাই থানা ও ডিবি পুলিশ উপজেলায় প্রবেশের সবগুলো সড়কে চেকপোস্ট বসান। এরপর হাওর এলাকাসহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সাড়াশি অভিযান চালায় পুলিশ। ভোরে নাছিরনগর উপজেলার আতুকুড়া ব্রিজের নিকট দিয়ে একটি সিএনজি অটোরিকশাযোগে পালানোর সময় চেকপোস্টে ডাকাতদের আটক করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে তারা ডাকাতির কথা স্বীকার করে। পরে তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী ফুলবাড়িয়া হাওর থেকে একটি এলইডি টিভি, ডাকাতিতে ব্যবহৃত রামদা, রড, লোহার পাইপ, হাতুড়ি, বটি দা, ছুরিসহ অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করা হয়। পুলিশ সুপার আরও জানান, আটককৃতদের মধ্যে ৪ জন নিজেদের দোষ স্বীকার করে গতকাল শনিবার দুপুরে হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেছে। এ ঘটনায় ওই গৃহকর্তী বাদী হয়ে লাখাই থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।