মাধবপুরে সংবাদ প্রকাশের পর ত্রাণ পেল হাসিম ও জুলেখার পরিবার

মাধবপুরে সংবাদ প্রকাশের পর ত্রাণ পেল হাসিম ও জুলেখার পরিবার

মোঃজাকির হোসেনঃ হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের দেবনগর গ্রামের আবদুল হাসিম এবং জলেখা বেগমের পরিবার করোনায় কর্মহীন অর্থহীন হয়ে পড়ায় অনাহারে দিন কাটাচ্ছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর সরকারি বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে এবং ব্যক্তিগত ভাবে ত্রাণ ফেল পরিবারটি।

গত ২রা মে শনিবার সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের দেবনগর গ্রামের আব্দুল হাসিম ও জুলেখা বেগমের পরিবারটি করোনার কারণে কর্মহীন হয়ে পড়ায় অনাহারে দিন কাটাচ্ছে এবং এলাকা সূত্রে জানা যায় পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে নিজের বলতে নেই কোন জমি-জায়গা ভাঙ্গা টিনের ঘরে বসবাস করে আসছে হতদরিদ্র করোনায় কর্মহীন অর্থহীন হয়ে পড়া আব্দুল হাসিম ও জুলেখা বেগমের পরিবার।

এমন অবস্থায় মিলেনি কোন সরকারি ত্রাণ সামগ্রী ও তার পরিবারে।

বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে ২রা মে শনিবার সংবাদ প্রকাশের পর মাধবপুর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে (৩ মে) রবিবার বিকেলে পরিবারটিকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে ১০ কেজি চাউল পৌঁছে দেওয়া হয়েছে এবং সাংবাদিক হামিদুর রহমানের সাথে নিউজ দেখে এক প্রবাসী যোগাযোগ করে আগামী ২০ দিন চলার জন্যে ঐ পরিবারের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য
সামগ্রী ও চাউল কিনে পাঠান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আর একজন ব্যক্তি ১ হাজার টাকা পাঠান সাংবাদিক হামিদুর রহমানের কাছে এবং মাধবপুর উপজেলার ফায়ার সার্ভিস কর্মী আলমগীর হোসেন নামে আরও একজন ব্যক্তি ১ হাজার টাকা পাঠান।

নিউজ দেখে উপজেলার স্বচ্ছতা গ্রুপ নামের একটি সংগঠনের পক্ষ থেকে কিছু খাদ্য সামগ্রী এবং চাউল কিনে স্বচ্ছতা গ্রুপের সদস্য মোঃ মামুন মিয়া ঐ পরিবারটি হাতে পৌছে দেয়।

মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ড্রাইভার মোঃ ইব্রাহিম মিয়া ব্যক্তিগত তহবিল থেকে কিছু নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী ও কিছু আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেন।

(৩রা মে) বিকালে সাংবাদিক হামিদুর রহমান, জাকির হোসেন এবং দুলাল সিদ্দিকী ও ধর্মঘর ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের সদস্য আশিকুর রহমান (মামুন) ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে সকলের দানকৃত নগদ আর্থিক সহযোগিতা এবং ত্রাণ সামগ্রী ওই পরিবারটির কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়।