১০ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
২৩শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
দুপুর ২:২৮

জনপ্রিয় ৫ সংবাদ

আরো কিছু সংবাদ

মেছো বিড়ালের মা সহ ৩ বাচ্চা উদ্ধার করলো পাখি প্রেমিক সোসাইটির সদস্যরা

মুজাহিদ মসি: হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় বৈদ্যুতিক খুটির স্তুপ থেকে মা মেছো বিড়ালসহ তিনটি বাচ্চা বন বিভাগের সহযোগিতায় উদ্ধার করেছে স্থানীয় বন্যপ্রাণী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন  পাখি প্রেমিক সোসাইটির সদস্যরা।
রবিবার  (২৮ জানুয়ারি) রাত ৯ টায় উপজেলার বাঘাসুরা ইউপির মানিকপুর  গ্রামের বৈদ্যুতিক খুঁটি  স্তুপের নিচ মেছো বিড়ালের তিনটি বাচ্ছাসহ মা মেছো বিড়ালকে  উদ্ধার করে পাখি প্রেমিক সোসাইটির সদস্যরা।

জানা যায়, ওই গ্রামের শাহ আলম মিয়ার বাড়ির কাছে বৈদ্যুতিক খুঁটি সরানোর পর বাচ্চাগুলা অসহায় অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। এদের মা বিড়ালটি বাচ্চাগুলোকে ছেড়ে যায়নি। স্থানীয় জনগণের সহায়তায় লোকজনের সহায়তায় পাখি প্রেমিক সোসাইটির সদস্যরা খবর পেয়ে বন বিভাগকে জানায়।

পরে সিলেটের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমের পরামর্শে স্থানীয় রেঞ্জ কর্মকর্তা
মোঃখলিলুর রহমান ও স্থানীয় সাংবাদিক ও পাখি প্রেমিক সোসাইটি প্রতিনিধি সোহাগ মিয়া,শাহজীবাজারের ফরেস্ট গার্ড সৈয়দ হামিদুর রহমান, গ্রাম পুলিশ মোখলেছুর রহমান ও সাংবাদিক রুবেল আহমেদ রনি প্রমুখের সহযোগিতায় নিরাপদ আশ্রয় নিয়ে আসেন এরা। এদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করে স্থানীয় রঘুনন্দন পাহাড়ে অবমুক্ত করা হয়।

হবিগঞ্জে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেঞ্জ কর্মকর্তা তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী জানান,বন্যপ্রাণী উদ্ধার আমাদের রেগুলার রুটিন কাজ। আজকে পাখি প্রেমিক সোসাইটির সদস্যরা মেছোবিড়াল গুলোকে উদ্ধার করে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো তাদের বিশেষ ধন্যবাদ জানালাম।

মেছোবিড়াল বর্তমানে বিলুপ্তপ্রায় পর্যায়ের প্রাণী।  যা সাধারণত জলাভূমি,বরাবর নদী, প্রবাহ, অশ্বখুরাকৃত হ্রদ, জলাভূমি, এবং ম্যানগ্রোভতে বাস করে। এদের উপস্থিতি সেখানকার জলাভূমির অবস্থার ভালো-মন্দ নির্ধারণে সাহায্য করে।

এদের গায়ে ছোপ ছোপ চিহ্ন থাকার জন্য চিতাবাঘ বলেও ভুল করা হয়।ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এটিকে সেই রাজ্যের ‘রাজ্য প্রাণী’ তকমা দেওয়া হয়েছে এবং এই রাজ্য বর্তমানে বাঘরোল সংরক্ষণে ও তাদের সংখ্যা বৃদ্ধিতে আশার আলো দেখিয়েছে।