রোনালদোর হ্যাটট্রিকে লিথুয়ানিয়াকে উড়িয়ে দিল পর্তুগাল

হ্যাটট্রিক উপহার দিলেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। গোলের খাতায় নাম লেখালেন তার আরও তিন সতীর্থ।

২০২০ ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইয়ে লিথুয়ানিয়াকে উড়িয়ে মূল পর্বে খেলার আশা ভালোভাবে বাঁচিয়ে রাখল পর্তুগাল।

নিজেদের মাঠে বৃহস্পতিবার রাতে ‘বি’ গ্রুপে ম্যাচে ৬-০ গোলে জিতেছে পর্তুগাল। তাদের বাকি তিন গোল করেন বের্নার্দো সিলভা, আফোনসো ফের্নান্দেস ও গনসালো পাসিয়েনসিয়া।

একই রাতে লুক্সেমবার্গের বিপক্ষে সার্বিয়া ৩-২ গোলে জেতায় মূল পর্বের অপেক্ষা বাড়ল রোনালদোদের। ৭ ম্যাচে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ সেরা হয়ে সবার আগে মূলপর্বে খেলা নিশ্চিত করেছে ইউক্রেন। ১৪ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা পর্তুগালের মতো মূল পর্বের আশা বেঁচে আছে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে থাকা সার্বিয়ারও।

বলের নিয়ন্ত্রণ ও আক্রমণে এগিয়ে থাকা পর্তুগাল ম্যাচের সপ্তম মিনিটে রোনালদোর স্পট কিকে পেয়ে যায় কাঙিক্ষত গোলের দেখা। ডি-বক্সের মধ্যে ইউভেন্তুসের এই ফরোয়ার্ড ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়েছিলেন রেফারি।

২২তম মিনিটে রোনালদোর গোলেই ব্যবধান দ্বিগুণ হয়। গনসালোর বাড়ানো বল ধরে ডান পায়ের বাঁকানো শটে ঝাঁপিয়ে পড়া গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে দূরের পোস্ট দিয়ে জাল খুঁজে নেন ৩৪ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড।

প্রথমার্ধে করা ১৬টি আক্রমণের মধ্যে ছয়টি লিথুয়ানিয়ার গোলমুখে নিতে পেরেছিল পর্তুগাল। যার মধ্যে মাত্র দুটিতে লক্ষ্যভেদ করতে সক্ষম হয় প্রতিযোগিতাটির গত আসরের চ্যাম্পিয়নরা। তবে এ দুই গোলে চালকের আসনে বসে বিরতিতে যায় ফের্নান্দো সান্তোসের দল।

দ্বিতীয়ার্ধে চার মিনিটের মধ্যে লিথুয়ানিয়ার জালে আরও দুই গোল করে বড় জয়ের পথে ছুটতে থাকে পর্তুগাল। ৫২তম মিনিটে দুরূহ কোণ থেকে আফোনসো ফের্নান্দেস এবং চার মিনিট পর গনসালো পাসিয়েনসিয়া বাঁ পায়ের নিখুঁত শটে স্কোরলাইন ৪-০ করেন।

৬৩তম মিনিটে গোল করেন সিলভা। দুই মিনিট পর তার তৈরি করে দেওয়া সুযোগ কাজে লাগিয়ে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন রোনালদো। জাতীয় দলের হয়ে তারকা এই ফরোয়ার্ডের গোল হলো ৯৮টি।

অনেক আগে থেকেই পর্তুগালের সর্বোচ্চ গোলদাতা রোনালদো আরেকটি রেকর্ডের পথেও ছুটছেন দারুণ গতিতে। আন্তর্জাতিক ফুটবলে জাতীয় দলের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতা ইরানের আলি দাইয়ের (১০৯টি) থেকে আর মাত্র ১১ গোল দূরে তিনি।

৮৩তম মিনিটে রোনালদোকে তুলে দিয়োগো জোতাকে নামান পর্তুগাল কোচ। বাকিটা সময় নির্বিঘ্নে পার করে দিয়ে বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পর্তুগাল।