মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১
26 C
Habiganj

বানিয়াচংয়ে বাঁধ দেওয়াকে কেন্দ্র করে ভয়াবহ সংঘর্ষ

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে জলাশয়ে বাঁধ দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুই গ্রামের কয়েক‘শ মানুষ দেশীয় অস্ত্রে সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

বানিয়াচং উপজেলার ১ নং উত্তর-পূর্ব ইউনিয়নের কামালখানী গ্রাম ও মজলিশপুর গ্রামের সীমান্তে জলাশয়ে বাঁধ দেওয়ার বিরোধকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছে।

আজ ১৮ডিসেম্বর শুক্রবার সকাল ৮ ঘটিকায় সংঘর্ষটি শুরু হয়ে বেলা ১ ঘটিকা পর্যন্ত চলতে থাকে।

খবর পেয়ে বানিয়াচং থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে না পারায় হবিগঞ্জ থেকে দাঙ্গা পুলিশ নিয়ে আসা হয়।

সংঘর্ষের এক পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানা ও বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিগন পুলিশের সহযোগিতায় থামিয়ে দেয়ার চূড়ান্ত চেষ্টায় সফল হন। এ ঘটনায় অন্তত ৩০ জন লোক আহত হয়ছে। এর মধ্যে গুরুতর আহত ৩ জন।

উভয় পক্ষের গুরুতর আহতরা হলেন আবিদুর (৩০), লাল মিয়া (৩৫), মনছুর (৪০), অলি হোসেন (৩৭), জমির (৩৬), অপু সরকার (৩০), নিপু (৩০), সাজিদ (২৩), নূরুল আমীন (৪০), সাজলু (৩১), ফজলু (৪২), জিলু (২৮), নাজমুল (২৮), হারুন (৩৮), জসিম (৪০), আনসার মিয়া (৩৭)।

মজলিশপুর গ্রামের নজির মিয়া(২৫) কে গুরুতর আহত অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে।

সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ১ নং বানিয়াচং উত্তর-পূর্ব ইউপি‘র চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন আহমেদ(৫৯) আহত হয়েছেন।

এলাকাবাসী ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, কানিভাঙ্গা নামক একটি জলাশয়ে কামালখানী গ্রামের লোকজন বাঁধ দেন। পরে মজলিশপুর গ্রামের লোকজন গতকাল ভোরে ভেঙ্গে ফেলে দেয়। পরবর্তীতে কামালখানী গ্রামের লোকজন মজলিশপুর গ্রামের লোকজনের নিকট এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করে সঠিক জবাব না পেয়ে তাদেরকে বাঁধের এলাকা থেকে তাড়িয়ে দেয়।

এতে মজলিশপুর গ্রামের লোকজন মাইকে ঘোষনা দিয়ে তাদের লোকজনকে ঘটনাস্থলে দেশীয় অস্ত্রে সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে যাওয়ার জন্য আহবান জানায়। এ দিকে কামালখানী গ্রামের লোকজনও মাইকে ঘোষনা দিয়ে তাদের লোকজনকে ঘটনাস্থলে যাওয়ার জন্য আহবান জানায়।

এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্রে সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষটি থামাতে থানা পুলিশ উভয় পক্ষকে ছত্র ভঙ্গ করে দেওয়ার পরও দফায় দফায় সংঘর্ষটি চলতে থাকে।

বানিয়াচং থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ এমরান হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, দূর্ঘম হাওরের মাঝে দু‘দল গ্রামবাসী বাঁধ দেওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। বর্তমানে সম্পূর্ণ পরিস্থিতি থানা পুলিশের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানা বলেন থানা পুলিশ, জনপ্রতিনিধি সহ উপজেলা প্রশাসন ঘটনাস্থলে পৌছে উভয় পক্ষকে শান্ত করেছে। সব কিছু এখন প্রশাসনের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।

প্রিয় পাঠক

আপনার আশেপাশের যে কোন সমস্যার কথা আমাদেরকে লিখে পাঠান। এলাকার সম্ভাবনার কথা, মাদক, দুর্নীতি, অনিয়ম আর সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্যসহ পাঠিয়ে দিন আমাদের ই-মেইলে। ই-মেইলঃ habiganjnews24@hotmail.com

95,640FansLike
1,432FollowersFollow
2,458FollowersFollow
2,145SubscribersSubscribe