মাধবপুরে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত, দোষীদের শাস্তির দাবি!

মাধবপুর উপজেলা প্রেসক্লাবে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন করে হাফেজ মোবারক উল্লাহ সবার সহযোগিতার মাধ্যমে দোষীদের শাস্তির আওতায় আনার জন্য জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নিকট অনুরোধ জানিয়েছেন।

আজ রোববার (১৭ মে) সংবাদ সম্মেলনে উপজেলার বানেশ্বর গ্রামের আশরাফ আলীর ফসলী জমি ভূমিখেকোরা জালিয়াতির মাধ্যমে দখল ও ড্রেজার মেশিন দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত করার অভিযোগ করেছেন তার ছেলে হাফেজ মোবারক উল্লাহ।

তিনি সংবাদ সম্মলনে জানান, তাদের ফসলী জমি বিক্রি করতে রাজি না হওয়ায় একই গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে মনির আহম্মদ ও লোদন মিয়ার ছেলে আনিছুর রহমান জাল দলিল করে প্রশাসনকে ভুল বুঝিয়ে ড্রেজার মেশিন স্থাপন করেন। ড্রেজার মেশিন চালু অবস্থায় হাফেজ মোবারক উল্লাহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর দরখাস্তের প্রেক্ষিতে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সশরীরে উপস্থিত হয়ে ড্রেজার মেশিন বন্ধ করে দিয়ে আসেন। তবে এরপরও ড্রেজার মেশিন বন্ধ হয়নি, উপরন্তু তাদের জমির উপর পাইপ স্থাপন করার ফলে ফসলী জমি ভেঙে যায়। এতে জমির মালিক আশরাফ আলী প্রতিবাদ করলে অলিউর রহমান বাচ্চু মিয়ার দুই ছেলে মনির ও রাজু, উসমান মিয়ার ছেলে লুৎফুর রহমান, লোদন মিয়ার ছেলে আনিছুর রহমান ও জয়নাল মিয়ার ছেলে মুক্তার মিয়া গংরা বৃদ্ধ আশরাফ আলীকে শারিরীকভাবে লাঞ্ছিত করে।

তার ছেলে হাফেজ মোবারক উল্লাহ বাদী হয়ে ১০ মে থানায় একটি অভিযোগ দায়েন করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে মাধবপুর থানার উপ-পরিদর্শক জহিরুল ইসলাম ও ডিএসবি’র উপ-পরিদর্শক সাইকুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে হাফেজ মোবারক উল্লাহকে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য মিথ্যা কল্পকাহিনী পোস্ট করে যাচ্ছেন একটি কুচক্রী মহল। গত শুক্রবার (১৫ মে) বিবাদীরা তাদের নিজেদের পুকুরে দিনে-দুপুরে বিষ ঢেলে মাছ মেরে বাদী মোবারক উল্লাহকে আইন ও সমাজের কাছে দোষী বানানোর অপচেষ্টা করে যাচ্ছে। এমন অসহায় অবস্থায় বৃদ্ধ অসুস্থ আশরাফ আলীর পক্ষে তার ছেলে হাফেজ মোবারক উল্লাহ আইনি সহযোগিতা চেয়েছেন।

এ ব্যাপারে মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইকবাল হোসেন বলেন, ড্রেজার দিয়ে ফসলী জমি নষ্ট করার অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।