কাদিয়ানীদের কাফের ঘোষণা করতে হবে হবিগঞ্জে আল্লামা শফী

হবিগঞ্জ উমেদনগর জামিয়া ইসলামিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসার বার্ষিক সভা উপলক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘আন্তর্জাতিক ইসলামী মহাসম্মেলন’।

গতকাল শুক্রবার সকাল হতে হবিগঞ্জ শহরের উত্তর প্রান্তে অবস্থিত মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে শুরু হয়ে আজ  সকালে ভোরে আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয় এই সম্মেলন।

আখেরী মোনাজাত করেন হেফাজতের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী।

সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সভাপতি আল্লামা শায়খ আব্দুল মোমিন।

প্রধান অতিথি হিসেবে থাকেন  হেফাজতে ইসলামীর নায়েবে আমির আল্লামা শাহ আহমেদ শফী।

এই সময় তিনি বিভিন্ন দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।

আল্লামা শফী বলেনঃ “কাদিয়ানীরা কাফের, তাদের কে রাষ্ট্রীয়ভাবে কাফের ঘোষণা করতে হবে, তাদের সাথে কোন সম্পর্ক করা যাবে না, তাদের কে মুসলমানদের কবর দেওয়া যাবে না এবং তাদের কে যারা কাফের মনে করবে না তারাও কাফের হয়ে যাবে”।

তিনি আরো বলেন;- “শিক্ষার্থীদেরকে মোবাইলের নেতিবাচক প্রভাব হতে মুক্ত হয়ে লেখাপড়ায় আরো মনোযোগী হতে হবে।

আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জীর গড়ে তোলা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার জন্য তিনি সকলের প্রতি অনুরোধ জানান।

সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন সিলেট বিভাগের অতিরিক্ত ডিআইজি জয়দেব কুমার ভদ্র, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা, যুক্তরাজ্য প্রবাসী সমাজসেবক মাওলানা শুয়াইব আহমদ, হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোঃ মিজানুর রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মরহুম আল্লামা তাফাজ্জুল হকের দুইপুত্র হাফেজ মাওলানা মাসরুরুল হক ও হাফেজ মাওলানা তাহফিমুল হক।

সম্মেলনে দেশ বিদেশ হতে আগত ইসলামী চিন্তাবিদ ও বক্তাগন বক্তব্য রাখেন। সম্মেলনের  আখেরি মোনাজাতে  জামিয়ার বর্তমান মুহতামিম মরহুম আল্লামা হবিগঞ্জীর সাহেবজাদা হাফেজ মাওলানা মাসরুরুল হক দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা চেয়েছেন।